হলে ছাত্র বান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি করতে চাই : রাবি প্রাধ্যক্ষ

হলে ছাত্র বান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি করতে চাই : রাবি প্রাধ্যক্ষ

348
Hall daining
সৈয়দ আমীর আলী হলের ডাইনিং রুম(ছবি মানিক রায়হান)
রাবি ১৯ জুলাই ২০১৭ মানিক রাইহান বাপ্পী রাবি প্রতিনিধি:রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) সৈয়দ আমির আলী হলের নতুন প্রাধ্যক্ষ সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আমিনুল ইসলাম বলেন,আবাসিক হলের শিক্ষার্থীরা এক-একটি পরিবার,তাই হলে ছাত্রবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি করাই আমার একমাত্র দায়িত্ব ও কর্তব্য।
প্রাধ্যক্ষ হিসেবে তিনি গত মে মাসে যোগদান করেন। গত ২৯ মে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. আব্দুস সোবহান তাকে নিয়োগ দেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের হল প্রভোস্টদের মধ্যে তিনিই সর্ব কনিষ্ঠ। তবে কনিষ্ঠ হলেও কাজের অভিজ্ঞতায় কোন দিক দিয়ে কমতি নাই বলেলেই চলে। নিত্য নতুন সৃষ্টিশীল আবিষ্কার করাই যেন তার কাজ। অল্প কয়েক মাসের ব্যবধানে হলের শিক্ষার্থী, কর্মচারী সবার নিকটে সুপরিচিত হয়ে উঠেছেন। নতুন এ প্রাধ্যক্ষের ব্যবহারে তুষ্টি হয়েছেন আবাসিক হলের শিক্ষার্থীরা।শিক্ষার্থীরা নির্দ্ধিদায় সকল সমস্যা খুলে বলতে কোন সংকোচবোধ করেছেন না। হলের উন্নয়ন মূলক কাজ চলছে চোঁখে পড়ার মতো। ডাইনিংয়ের পরিবেশ সুন্দর করার জন্য নতুন রুম বরাদ্দ দিয়েছেন। সর্বশেষ গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে হলের ডাইনিং রুমের উদ্ধোধন করেন। এসময় হলের হাউস টিউটর,শিক্ষার্থী ও কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন। প্রাধ্যক্ষের ব্যবহারে সন্তুষ্ট হয়ে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের শিক্ষার্থীরা বলেন, আমরা নতুন হল প্রাধ্যক্ষর ব্যবহারে আমরা সন্তুষ্ট । বিশেষ করে ইতোপুর্বে কোন হল প্রভোস্টকে দেখি নাই যিনি আমাদের সাথে খাবার খেয়েছেন। কিন্তু নতুন প্রভোস্ট স্যার নিয়মিত ডাইনিংয়ে গিয়ে খাবারের মান যাচাই করার জন্য আমাদের সাথে বসে খাবার খান।
এদিকে হলের চারপাশে আগাছা পরিষ্কার করে সর্বত্রই আলোর ব্যবস্থা করেছেন। শিক্ষার্থীদের পড়াশুনার জন্য রিডিং রুমের ব্যবস্থা করেছেন। তিনি সৈয়দ আমীর আলীর জীবন ও কর্ম সমন্ধে বোর্ড আকারে নামফলক তৈরী করেছেন।
Amir Ali Hall
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সৈয়দ আমীর আলী হল
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে সৈয়দ আমীর আলী হলের সুপার ভাইজার মাসুম আখতারুজ্জামান বলেন, নতুন প্রভোস্ট স্যারের দায়িত্ব নেয়ার দুই মাস হয়ে গেল। এর মধ্যে তার মাঝে নতুন সৃষ্টিশীল মনোভাব দেখেছি। তিনি হলের সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। আগের থেকে হলের পরিবেশ অনেকটাই পরিবর্তন হয়েছে। আশা করি তিনি যেভাবে সকলকে নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন অন্যান্য হলের তুলনায় এটি আদর্শ আবাসিক হলে হিসেবে বিবেচিত হবে বলে আমি মনে করি। এ ব্যাপারে হল প্রভোস্ট ড.মো আমিনুল ইসলাম বলেন, হলে সুষ্ঠু ও সুন্দর ছাত্র বান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি করাই আমার লক্ষ্য। এখানে শিক্ষার্থীরা একটা পরিবারের মত বাস করে। এ পরিবারের দায়িত্ব আমার হাতে দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। তাই হলে যাতে কোন প্রকার অপ্রিতিকর ঘটনা যাতে না ঘটে ও শিক্ষার্থীদের পড়ালেখায় যাতে কোন বিঘ্ন না ঘটে সেটা আমি রক্ষ্য রাখব। আমিও এক সময় ছাত্র ছিলাম,তাই শিক্ষার্থীদের দু:খ কষ্ট অনেকটাই বুঝতে পারি। এজন্য আমি সকলের সাথে বসে খেয়ে খাবারের মান পরিবর্তন করেছি। মসজিদের কিছু সমস্যা ছিল সমাধান করেছি। হলের সর্বত্র ওয়াইফাইসহ ভালো ইলেকট্রিসিটির ব্যবস্থা করেছি। কর্মচারীদেরও অনেক সমস্যা রয়েছে সেগুলো সমাধান করবো। সর্বোপরি আমি এ হলকে একটি আদর্শ হল হিসেবে গড়ে তুলবো।