যথাযথ মর্যাদায় বঙ্গবন্ধুর ৯৮তম জন্মদিন উদযাপিত

109
bangabandhu
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্মদিন উদযাপিত

ঢাকা,শনিবার, ১৮ মার্চ, ২০১৭  : যথাযথ মর্যাদা, ধর্মীয় প্রার্থনা ও আনন্দ উৎসবের মধ্যদিয়ে দেশব্যাপী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্মদিন উদযাপিত হয়েছে। একই সাথে জাতীয় শিশু দিবস উদযাপিত হয়েছে। দেশের বিভিন্ন বিভাগীয় শহর, জেলা ও উপজেলা থেকে বাসস প্রতিনিধি ও সংবাদদাতাগণ জানান, সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোগে গতকাল,১৭ মার্চের প্রথম প্রহর থেকেই বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন ও নানা কর্মসূচীর মাধ্যমে দিবসটি উদযাপিত হয়। দিনটি উপলক্ষে সকাল ৬টা ৩০ মিনিটে বঙ্গবন্ধু ভবন ও দেশব্যাপী দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। এ উপলক্ষে বঙ্গবন্ধুর জন্মস্থান টুঙ্গিপাড়ায়ও প্রতিবারের মতো বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯২০ সালের এই দিনে গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়ায় এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার জন্মদিন উপলক্ষে প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিবসটি উপলক্ষে পৃথক বাণী দিয়েছেন।

bangabandhu grave
টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন

স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্মদিনে টুঙ্গিপাড়ায় তার সমাধিসৌধে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল শুক্রবার সকাল সোয়া ১০টার দিকে বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধ বেদীতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন প্রেসিডেন্ট ও বঙ্গবন্ধুকন্যা। পরে তারা ফাতেহাপাঠ ও বঙ্গবন্ধুর রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া মোনাজাতে অংশ নেন।
ধানমন্ডিতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ ‍হাসিনা। সকাল ৭টায় ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে শ্রদ্ধা জানানোর সময় তাঁর সঙ্গে ছিলেন আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতারা। প্রধানমন্ত্রীর পর প্রথমে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায় বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের ঢাকা মহানগরের দক্ষিণ ও উত্তর নেতা-কর্মীরা।
এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষে ভিসি আ আ স ম আরেফিন সিদ্দিক বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। পর্যায়ক্রমে যুবলীগ, মহিলা যুবলীগ, শ্রমিকলীগ, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটসহ বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মীরা ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এরপর বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক  সংগঠনের নেতাকর্মীদের ঢল নামে ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে। এ সময় নেতাকর্মীদের ‘শুভদিন, বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন’, ‘ইতিহাসের এ দিনে বঙ্গবন্ধু তোমায় মনে পড়ে’, এ রকম নানা স্লোগান দিতে দেখা যায়।
এ ছাড়া শিশু সমাবেশ, আলোচনা সভা, গ্রন্থমেলা, সেলাই মেশিন বিতরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং একই স্থানে অনুষ্ঠিত ‘খোকা থেকে বঙ্গবন্ধু’ শিরোনামে আলোকচিত্র পরিদর্শন করবেন প্রধানমন্ত্রী।
বিভাগ, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের শহরগুলোতে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা, শিশু-কিশোরদের জন্য চিত্রাঙ্কন, আবৃত্তি, সুন্দর হাতের লেখা, দেশাত্ববোধক গান ও বঙ্গবন্ধু সম্পর্কিত গানের প্রতিযোগিতা ছাড়াও দোয়া মাহফিল, আলোচনা সভা, পুরস্কার বিতরণ, রক্তদান কর্মসূচী, মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক বই, প্রামান্যচিত্র প্রদর্শনী ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন এবং কেক কাটার মধ্যদিয়ে সর্বস্তরের মানুষ দিবসটি উদযাপন করে।