বিচারপতি খায়রুল হক দেশের গণতন্ত্রকে কবর দিয়েছেন:বিএনপি

77
Mirza-Faqrul
বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।
ঢাকা,শুক্রবার,১১ আগস্ট ২০১৭: ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের পূর্ণাঙ্গ রায় নিয়ে আইন কমিশনের চেয়ারম্যান এবিএম খায়রুল হকের বক্তব্যে ‘ধিক্কার’ জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন,এবিএম খায়রুল হক তার কৃতকর্মের জন্য কোনো অনুশোচনাতো করেনইনি বরং একটি অন্যায়ের পক্ষে সাফাই গেয়েছেন।অভিযোগ করেন মির্জা ফখরুল বলেন,আমরা লক্ষ্য করলাম যে, সরকার বা সরকারি দল আওয়ামী লীগ কোনো আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া দেয়ার পূর্বেই সাবেক প্রধান বিচারপতি বর্তমান আইন কমিশনের চেয়ারম্যান এ বি এম খায়রুল হক সুপ্রিম কোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে বিষোদগার করেছেন।মনে হলো ক্ষমতাসীন দল ও আইন কমিশনের চেয়ারম্যানের বক্তব্য একই সুরে বাধা। আইন কমিশনের আসনে বসে সুপ্রিম কোর্টের রায় সম্পর্কে এবং মাননীয় প্রধান বিচারপতি সম্পর্কে যেসব উক্তি করেছেন তা শুধু অশালীনই নয়, তা রীতিমত আদালত অবমাননার শামীল। তিনি বলেন, পঞ্চম ও এয়োদশ সংশোধনী বাতিলের ফলে আজ দেশে যে সাংবিধানিক ও রাজনৈতিক সংকট সৃষ্টি হয়েছে তা গণতন্ত্রকে পুরোপুরি ভঙ্গুর করে ফেলেছে। বিচারপতি খায়রুল হকের বক্তব্য ও আওয়ামী লীগের নেতা ও মন্ত্রীদের বক্তব্যের মধ্যে কোন পার্থক্য নেই। ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়কে ‘ম্যাগনাকার্টা’ হিসেবে অভিহিত করে মির্জা ফখরুল বলেন, ৭৯৯ পৃষ্ঠার ঐতিহাসিক ও দার্শনিক দিক নির্দেশনামূলক এই রায়ের মাধ্যমে বর্তমান রাজনৈতিক ও সামাজিক প্রেক্ষাপট এবং রাষ্ট্রের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে এটা ম্যাগনাকার্টা বলে আমাদের কাছে মনে হয়েছে। হতাশাগ্রস্থ জাতি এই রায়ের মাধ্যমে আশার আলো দেখতে পেয়েছে। আমরা সেজন্য এই রায়কে স্বাগত জানিয়েছি এবং আপিল বিভাগকে অভিনন্দন জানিয়েছি।এই রায় সুশাসনের জন্য, ন্যায় বিচারের জন্য, গণতন্ত্রের জন্য, মানবাধিকারের জন্য নিসন্দেহে আশার আলো। আমরা সংগ্রাম করছি, সুশাসন, ন্যায় বিচার ও গণতন্ত্রের জন্য। আমাদের লক্ষ্য অর্জিত না হওয়া পর্য়ন্ত এই সংগ্রাম আমাদের অব্যাহত থাকবে।আওয়ামী লীগের প্রতিক্রিয়ার জবাবে বিএনপি মহাসচিব বলেন,আওয়ামী লীগের স্বরূপ উন্মোচিত হয়েছে। যে দানব তারা সৃষ্টি করেছেন, সেই দানবই আজকে তাদেরকে গ্রাস করতে চলেছে।সুপ্রিম কোর্টের রায় নিয়ে সরকারের মন্ত্রীদের বক্তব্যের প্রতি ইঙ্গিত করে মির্জা ফখরুল বলেন, একজন মন্ত্রী বলেছেন যে বিচার বিভাগের হাত এতো লম্বা হয়নি এবং একটা হুমকিও দেয়া হয়েছে যে, এর বেশি উঠবেন না। এগুলো থেকে প্রমাণিত হয় আওয়ামী লীগের মন্ত্রীদের বা ক্ষমতাসীন দলের মানসিকতাটা কী? রায় দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে তারা জ্বলে উঠেছেন। কারণ তারা যে অপকর্ম করেছেন, তারা যে জোর করে ক্ষমতা দখল করে আছেন, একনায়কের চাইতে খারাপ ভাবে দেশ পরিচালনা করছেন দানবীয়ভাবে-সেই কথাগুলো এখানে এসে গেছে।
Zainul Abedin
সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন।
এদিকে বাংলাদেশের সাবেক প্রধান বিচারপতি ও আইন কমিশনের চেয়ারম্যান এ বি এম খায়রুল হক ‘গণতন্ত্রের কবর রচনা করেছেন’ বলে মন্তব্য করেছেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন। সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন,ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় নিয়ে খায়রুল হক যে বক্তব্য দিয়েছেন তাতে তিনি বিচার বিভাগের স্বাধীনতা ও গণতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন।বিচারপতি খায়রুল হক মুন সিনেমা হল অধিগ্রহণ সংক্রান্ত মামলার রায় দিতে গিয়ে উদ্দেশ্যমূলক,পূর্ব- পরিকল্পিত ও অপ্রাসঙ্গিকভাবে সংবিধানের পঞ্চম সংশোধনী বাতিল করেছেন। তিনি পঞ্চম ও ত্রয়োদশ সংশোধনীর রায়কেও বিতর্কিত করেছেন। এ কারণে বিচারপতি খায়রুল হক ষোড়শ সংশোধীর রায় বাতিলে পূর্ব পরিকল্পনার গন্ধ পাচ্ছেন। সভাপতি বলেন, খায়রুল হক তত্ত্বাবধায়ক সরকার পদ্ধতি বাতিলের রায় দিয়েছিল। যার কারনে দেশে আজ রাজনৈতিক বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়েছে। দেশের মানুষ তাদের ভোটের অধিকার হারিয়েছে। এ রায়ের ফলে তিনি গণতন্ত্র ও মৌলিক মূল্যবোধের কবর রচনা করেছেন।তিনি বলেন, বিচারপতি খায়রুল হক তার বক্তব্যের মাধ্যমে বিচার ব্যবস্থা, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা ও গণতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থার বিরুদ্ধে তার অবস্থান পরিষ্কার করেছেন। ষোড়শ সংশোধনীর রায়ে পুরো ধারণাটা ছিলো বিচার বিভাগকে করায়াত্ব করা, আতঙ্কের মধ্যে রাখা, ভয়ের মধ্যে রাখা যাতে বিচারকরা সুষ্ঠুভাবে বিচার করতে না পারেন। সাবেক প্রধান বিচারপতি খায়রুল হক বললেন আগামী দুটি টার্মের জন্য তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন করা যেতে পারে। তিনি সেখানে গ্রিক ফিলোসফি নিয়ে আসলেন, বললেন যে জনগণের স্বার্থে এটা করা উচিত বলে তিনি মনে করেন। ১৬ মাস পরে উনি পূর্ণাঙ্গ রায় দিলেন। সেই রায়ের মধ্যে এ কথাগুলো নাই। একজন প্রধান বিচারপতি তিনি যদি এরকম অনৈতিক কাজ করেন, আমি মনে করি তিনি বিরাট একটা অপরাধ করেছেন। ইট ইজ এ জুডিশিয়াল ক্রাইম।