ফরহাদ মজহারকে যশোর থেকে উদ্ধার করা হয়েছে,এখন ঢাকার ডিবি কার্যালয়ে

712
Farhad Mazhar
বিশিষ্ট লেখক ,কবি, কলামিস্ট,প্রবন্ধকার এবং রাজনৈতিক বিশ্লেষক ফরহাদ মজহার।
ঢাকা,মঙ্গলবার ৪জুলাই ২০১৭:বাংলাদেশের বিশিষ্ট কবি,কলামিস্ট ও বুদ্ধিজীবী ফরহাদ মজহারকে ঢাকা থেকে অপহরণের ১৮ ঘণ্টা পর যশোরের নোয়াপাড়া থেকে উদ্ধার করা হয়েছে।এখন তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ঢাকার গোয়েন্দা পুলিশের কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। উল্লেখ্য গতকাল সোমবার ভোর ৫টার পর তার বাসার সামনে থেকে তাকে অপহরণ করা হয়। এর পর তিনি স্ত্রীর সাথে টেলিফোনে কয়েকবার কথা বলে জানান, অপহরণকারীরা মুক্তিপণ দাবি করছে। তাকে হত্যা করার আশঙ্কাও প্রকাশ করেন তিনি।ফরহাদ মজহারকে অপহরণের পর থেকেই আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী দেশব্যাপী চিরুনি তল্লাশি অভিযান শুরু করে।।মি. মজহারের মোবাইল ফোন ট্র্যাকিং করেই তার অবস্থান সম্পর্কে নিশ্চিত করার চেষ্টা করে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।
Farhad Mazhar
অপহরণের পর ফরহাদ মজহারকে নওয়াপাড়া থেকে উদ্ধার করে ব্যাব
আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী র‍্যাবের কাছে খবর ছিল ফরহাদ মজহার খুলনা এলাকাতেই রয়েছেন। সেই খবর অনুযায়ী তারা খুলনার বিভিন্ন এলাকায় তল্লাশি চালান। বিশেষ করে খুলনা মহানগরীতে তার অবস্থান নিয়ে বিকেল থেকে রাত অবধি চলে অভিযান। পরে সন্ধ্যায় গোপন তথ্যের ভিত্তিতে খুলনার সোনাডাঙ্গা থানার ইবরাহিম মিয়া সড়কের বাড়ি বাড়ি  তাঁর খোঁজে অভিযানশুরু করে র‍্যাব। র‌্যাব ট্র্যাকিং করে ওই সড়কে এ অভিযান শুরু করে। ওই সড়ক থেকে একটি পরিত্যক্ত মাইক্রোবাস উদ্ধারকরে র‌্যাব। তবে কোনো বাড়িতে ফরহাদ মজহারকে খুঁজে পাওয়া যায়নি।পরে রাত সাড়ে ১১টার দিকে র‍্যাবের একটি টহলদল নোয়াপাড়ার একটি বাস আটকে তল্লাশি করলে সেই বাস থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়। র‍্যাব বলছে,তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য প্রথমে তাকে খুলনার ফুলতলা থানায় নেয়া হয়। পরে ঢাকার আদাবর থানায় নেয়া হবে বলে জানান হয়। উদ্ধারের সময় মি. মজহার একাই ছিলেন। তার আচরণেরও কিছু ‘অস্বাভাবিকতা’ দেখা যাচ্ছে বলে জানান হয়। ফরহাদ মজহারকে উদ্ধারের পর মজহারের কথা তার স্ত্রী ফরিদা আখতারকে বলিয়ে বা শুনিয়ে দেয়া হয়, কিন্তু গলা শুনে তার স্বামীকে বেশ ক্লান্ত এবং হতাশ মনে হয় বলে জানান ফরিদা আখতার। তিনি জানান,ঘটনার দিন বিকেলে ফরহাদ মজহারের স্ত্রী ফরিদা আখতার আদাবর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। ডায়েরিতে উল্লেখ করা হয়েছে, ফরহাদ মজহার বাসা থেকে বের হওয়ার সময় তার পরনে সাদা পাঞ্জাবি, চেক লুঙ্গি ও সাদা চাদর ছিল।
Farhad Mazhar
ফরহাদ মজহার এখন ঢাকার ডিবি কার্যালয়ে।
আজ মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে যশোরের নোয়াপাড়া থেকে ঢাকার আদাবর থানায় আনা হয় ফরহাদ মজহারকে। সেখান থেকে পরে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাঁকে ডিবির কার্যালয়ে নেওয়া হয়।কবি ও প্রাবন্ধিক ফরহাদ মজহারকে রাজধানীর আদাবর থানা থেকে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) কার্যালয়ে নেওয়া হয়। আজ মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে ডিএমপির উপকমিশনার (গণমাধ্যম) মাসুদুর রহমান সংবাদমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। মি. মাসুদুর বলেন, ফরহাদ মজহার এখন ডিবি কার্যালয়ে আছেন। তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।আজ বেলা সাড়ে ১১টার পর ফরহাদ মজহারের স্ত্রী ফরিদা আখতার জানান,এ মুহূর্তে ফরহাদ মজহার ডিবি কার্যালয়ে আছেন।
Farida Akhter
সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন ফরহাদ মজহারের স্ত্রী ফরিদা আখতার।
এক সংবাদ সম্মেলনে ফরহাদ মজহারের মেয়ে সমতলী হক বলেন, আমি আমার বাবাকে ফেরত চাই। তিনি একজন লেখক, দার্শনিক। তার মতো একজন ব্যক্তি যখন অপহরণ হয় তখন তা দেশের মানুষের জন্য বড় ধরনের উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। তিনি বলেন, ফরহাদ মজহারকে কেন অপহরণ করা হয়েছে সে সম্পর্কে আমরা কোনো অনুমান করে কথা বলতে চাই না। তিনি অপহৃত হয়েছেন তাকে আমরা ফিরে পেতে চাই। এ জন্য তিনি আইনশৃঙ্খলা রক্ষকারী বাহিনী ও সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করেন। সংবাদ সম্মেলনে ডা: জাফরুল্লাহ চৌধুরী প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করে বলেন, বিষয়টি তিনি নিশ্চয়ই অবগত আছেন। আশা করি, এ ব্যাপারে তিনি পদক্ষেপ নেবেন। ফরহাদ মজহার অন্যায়ের বিরুদ্ধে কথা বলেন। তাকে অপহরণ করা একটি ভুল কাজ।
বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া এক টুইট বার্তায় কবি ও প্রাবন্ধিক ফরহাদ মজহারকে অবিলম্বে তার পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেয়ার দাবি জানান।
অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল এক বিজ্ঞপ্তিতে গতকাল বলেছে, বিশিষ্ট লেখক ফরহাদ মজহার কোথায় আছেন বিষয়টি শনাক্তকরণ এবং তাকে উদ্ধারে বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষকে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে।
এশিয়ান হিউম্যান রাইটস কমিশন (এএইচআরসি) তাদের এক বিজ্ঞপ্তিতে গতকাল ভোরে ঢাকা থেকে কবি ও কলামিস্ট ফরহাদ মজহার অপহরণের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে। সংস্থাটি জানায়, বাংলাদেশী এবং ভারতীয় কর্তৃপক্ষের উচিত নিখোঁজ বাংলাদেশী কবি ফরহাদ মজহার কোথায় আছেন বিষয়টি চিহ্নিত করা এবং তার নিরাপত্তা নিশ্চিত করা।
Farhad Mazha
উদ্ধারেরপর কন্যা সমতলী হক ও স্ত্রী ফরিদা আখতারের সাথে ফরহাদ মজহার।

 

উদ্ধার হওয়া কবি ও কলামিস্ট ফরহাদ মজহারকে ডিবি কার্যালয় থেকে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আজ মঙ্গলবার দুপুর ২টা ২৫ মিনিটে তাকে বহনকারী পুলিশের গাড়িটি মিন্টো রোডে অবস্থিত ডিবি কার্যালয় ত্যাগ করে। পৌনে ৩টায় গাড়িটি আদালত চত্বরে উপস্থিত হয়।
সোমবার ভোরে বাসা থেকে বের হওয়ার পরপরই একদল দুর্বৃত্ত তাকে ধরে চোখ বেঁধে একটি সাদা মাইক্রোতে তুলে নিয়ে যায়।ফরহাদ মজহারের নিখোঁজের ঘটনায় সোমবার রাতেই স্ত্রী ফরিদা আক্তার বাদী হয়ে আদাবর থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন। মামলা নং- ০৪। এর আগে, তিনি জিডি করেছিলেন। জিডি নং- ১০১।স্ত্রীর দায়ের করা অপহরণ মামলার বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্তের পর এ বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে।ডিবির এ কর্মকর্তা আরও জানান, নিখোঁজের পর উদ্ধার হওয়া পর্যন্ত- পুরো বিষয়টি জবানবন্দি হিসেবে গ্রহণ করা হবে। এ কারণে তাকে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে নেয়া হচ্ছে।
Farhad Mazhar
ফরহাদ মজহারকে আদালতে নেয়া হয়েছে