প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাল দিল্লী যাবেন

294
Hasina
বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

ঢাকা, বৃহস্পতিবার,৬ এপ্রিল, ২০১৭ :  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এক ঐতিহাসিক বিশেষ সফরে আগামীকাল দিল্লী যাবেন। প্রধনমন্ত্রীর এই সফরের মাধ্যমে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার বন্ধুত্ব এক বিশেষ মাত্রায় উন্নীত হবে। একই সঙ্গে উভয় দেশের অর্থনৈতিক, বাণিজ্যিক এবং যোগাযোগসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে সহযোগিতার ক্ষেত্রে নতুন দ্বার উন্মুক্ত হবে,সূচিত হবে এক নতুন অধ্যায়। শেখ হাসিনা কাল বিকেলে দিল্লিতে পৌঁছার পরপরই ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ তার সাথে সাক্ষাৎ করবেন। এসফরকালে প্রধানমন্ত্রী বিশেষ মর্যাদায় রাষ্ট্রপতি ভবনেই থাকবেন। এরপর সন্ধ্যায় দিল্লীস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশনে তাকে বর্ণাঢ্য সংবর্ধনা দেয়া হবে। সংবর্ধনায় কূটনীতিক, সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তা, ব্যবসায়ীসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত থাকবেন বলে হাইকমিশন সূত্রে জানা গেছে। দিল্লীর বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে জানা যায় ৮ এপ্রিল হায়দ্রাবাদ হাউজে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর মধ্যে দ্বিপাক্ষিক স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আনুষ্ঠানিক আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে। আলোচনার পর একগুচ্ছ চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হবে। এসময় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মজীবনীর হিন্দি সংস্করণ উন্মোচন করবেন দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী। বিকালে মহান মু্িক্তযুদ্ধে শাহাদৎ বরণকারী ভারতীয় সৈনিকদের সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে মুক্তিযুদ্ধে নিহত ৭ শহীদ ভারতীয় সেনা পরিবারকে আনুষ্ঠানিকভাবে সম্মাননা পত্র প্রদান করবেন।
সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানের কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্যে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর নিয়োজিত সাব-কমিটির আহ্বায়ক লেঃ কর্নেল (অবঃ) কাজী সাজ্জাদ আলী জহির, বীরপ্রতীক, দিল্লীতে বাসস’কে জানান, মহান মুক্তিযুদ্ধে শাহাদৎ বরণকারী ভারতীয় সেনা, নৌ, বিমানবাহিনী এবং বিএসএফ-এর ১৬৬১জন অফিসার ও জওয়ান-এর তালিকা তৈরী করা হয়েছে। তালিকাভুক্ত শহীদ সেনাদের মধ্যে থেকে সাত শহীদ সেনা পরিবারের হাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আনুষ্ঠানিকভাবে সম্মাননাপত্র তুলে দেবেন। এদের মধ্যে সেনাবাহিনীর ৪জন, বিমান বাহিনীর ১জন, নৌবাহিনীর ১জন এবং বিএসএফ-এর একজন শহীদ সেনা রয়েছেন। এর মাধ্যমে বাংলাদেশ এবং বাঙ্গালী জাতি মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদ ভারতীয় সেনাদের প্রতি আনুষ্ঠানিক সম্মান প্রদর্শন শুরু করবে। তিনি আরো জানান, পর্যায়ক্রমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিনিধিরা বাকী শহীদ পরিবারের কাছে মহান মুক্তিযুদ্ধে শাহাদৎ বরণের জন্যে বাংলাদেশের জনগণের পক্ষে থেকে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে সম্মাননা হস্তান্তর করবেন। ৯ এপ্রিল সকালে প্রধানমন্ত্রী আজমীর শরীফ যাবেন। সেখানে খাজা মঈনউদ্দিন চিশিতি (রহঃ)-এর দরগাহ শরীফ জিয়ারত করবেন। একইদিন বিকেলে প্রধানমন্ত্রী আনুষ্ঠানিকভাবে ভারতের রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির সাথে দেখা করবেন। পরে তিনি রাষ্ট্রপতি প্রদত্ত এক নৈশ ভোজে যোগ দেবেন। এদিন প্রধানমন্ত্রী কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী এবং কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী তার সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন। ১০ এপ্রিল সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ ও ভারতের শীর্ষ শিল্পপতি ও ব্যবসায়ীদের এক সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেবেন। ঐদিন  বিকেলে তিনি ঢাকার উদ্দেশ্যে দিল্লী ত্যাগ করবেন। সূত্রঃ বাসস।