ছয় বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ লেনদেন ডিএসইতে

266
Stock Exchange onlinesangbad
দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে

সপ্তাহের তৃতীয় কার্যদিবসে দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সূচকের ব্যাপক উত্থান ঘটেছে। পাশাপাশি বেড়েছে বেশির ভাগ কোম্পানির মিউচুয়াল ফান্ড ও শেয়ার দর।এদিন ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) দুই হাজার ৬৪ কোটি ৯৬ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে, যা গত সাড়ে ছয় বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ।এর আগে ২০১০ সালের ১২ জুন ডিএসইতে দুই হাজার ৭১ কোটি ৬১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছিল।আজ ৩২৮টি কোম্পানির ৭০ কোটি ১২ লাখ ২৩ হাজার ৮৫৫টি শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের লেনদেন হয়েছে। মোট লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২,০৬৪ কোটি ৯৬ লাখ ৫৭ হাজার ২৬৮ টাকা।ডিএসই ব্রড ইনডেক্স ডিএসইএক্স আগের কার্যদিবসের চেয়ে ৯৭.৬১ পয়েন্ট বেড়ে ৫,৫৭৫.৪৭ পয়েন্ট, ডিএস-৩০ মূল্য সূচক ৩৯.৬০ পয়েন্ট বেড়ে ১,৯৮৪.০৮ পয়েন্ট এবং ডিএসইএস শরীয়াহ্ সূচক ১৫.৬০ পয়েন্ট বেড়ে ১,২৭৬.৪৫ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। লেনদেন হওয়া কোম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ২২৪টির, কমেছে ৮৬টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৮টি কোম্পানির শেয়ার।বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বাজারে সূচকের ঊর্ধ্বমুখিতা থাকায় সাধারণ গ্রাহকের মধ্যে বিনিয়োগের আগ্রহ বেড়েছে। বাজারে নতুন বিনিয়োগকারী আসছেন। তবে সতর্কতার সঙ্গে বিনিয়োগ করতে হবে।চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক মোহাম্মদ মহিউদ্দিন জানান, ‘বাজারে লেনদেন এবং সূচক ঊর্ধ্বমুখী অবস্থানে আছে। এটা যেমন ভালো তবে, এর বিপরীত দিকও আছে। তবে এখন যারা বাজারে বিনিয়োগ করবে, তাদের অনেকটা হিসাব করে বিনিয়োগ করতে হবে। কোনোভাবে গুজবে কান দেওয়া যাবে না। বাজের একটা কুচক্র থাকে, যাদের কাজ হচ্ছে গুজব সৃষ্টি করে শেয়ারের দাম বাড়ানো বা কমানো।’