আদিবাসীদের সুখ এখন সোনার হরিণ!

190
indigenous students-1
আদিবাসী ছাত্র পরিষদের মানবন্ধন। (ছবি সালমান শাকিল রাবি)।
সালমান শাকিল রাবি প্রতিনিধি,সোমবার,৭ আগস্ট,২০১৭:আদিবাসীদের সুখ এখন সোনার যেন হরিণ! বাংলার আদিবাসীরা আজ সুখে নেই। ধর্মীয় অনুভুতির কারণে বারবার আমাদের উপর আক্রমোন হচ্ছে। পর্যটনের দোহাই দিয়ে আমাদের পূর্বপুরুষদের ভিটামাটি কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা চলছে। আজ আমাদে অস্তিত্ব হুমকির মুখে। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আদিবাসী ছাত্রপরিষদের উদ্যোগে এক মানববন্ধনে রাজশাহী মহানগর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ী ছাত্রপরিষদের সভাপতি দীপেন চাকমা এসব কথা বলেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের টুকিটাকি চত্ত্বরে এই মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়।
মহানগর পাহাড়ী চাত্রপরিষদের সাধারণ সম্পাদক দীপন চাকমার পরিচালনায় মানববন্ধনে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন, আদীবাসী ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি নকুল পাহান, সাধারণ সম্পাদক তরুণ মুন্ডা, মহানগর তথ্য ও প্রচার সম্পাদক মংখেয় রাখাইন প্রমুখ।
এসময় বক্তারা বলেন, দেশের বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে আমাদের উল্লেখযোগ্য ভুমিকা রয়েছে। তবে পার্বত্য চুক্তির ২০ বছর পেরিয়ে গেলেও আজ পর্যন্ত তা পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন পাইনি। বিভিন্ন দেশে আদিবাসী দিবসকে রাষ্ট্রীয়ভাবে পালন করা হলেও আমাদের দেশে সেটাও পালন করা হয় না। সমগ্র পাহাড়ীদের দাবি ৯ আগস্টকে জাতীয় ভাবে আদিবাসী দিবস হিসেবে পালন করতে হবে।
মানববন্ধন থেকে বক্তারা তিন দফা দাবি পেশ করেন। দাবিগুলো হলো, আদিবাসী হিসেবে সাংবিধানিক স্বীকৃতি দেয়া, পার্বত্য চুক্তির পূর্ণ বাস্তবায়ন করা, এবং সমতল আদিবাসীদের জন্য স্বাধীন ভুমি কমিশন গঠনের করা।
উল্লেখ্য, আদিবাসী ছাত্র পরিষদের মানবন্ধনে একাত্বতা প্রকাশ করে প্রগতিশীল ছাত্রজোটের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।
Human chain indigenous students
আদিবাসী ছাত্র পরিষদের মানবন্ধন। (ছবি সালমান শাকিল রাবি)।