আজানের শব্দ আমার ভাল লাগে : পূজা ভাট

298
Sonu Nigam
ভারতের গায়ক সনু নিগম
ঢাকা,মঙ্গলবার ১৮ এপ্রিল,২০১৭: ভারতের গায়ক সনু নিগম মাইকে আজান দেয়ার বিরুদ্ধে মন্তব্য করে বিতর্কের ঝঢ় তুলেছেন। গতকাল সোমবার সকালে সনু নিগম টুইটারে লেখেন, প্রতিদিন ভোরে আজানের ‘কর্কশ’ শব্দের কারণে আমার ঘুম ভেঙে যায়। এজন্য আমি বিরক্ত বোধ করি। আজানের শব্দে ঘুম ভেঙে যাওয়ার পর তিনি টুইটারে একের পর এক মন্তব্য পোস্ট করতে থাকেন সনু নিগম। সেখানে তিনি লেখেন- ‘আমি মুসলিম না। তাহলে কেন আজানের শব্দে আমার ঘুম ভাঙানো হবে ?  টুইটে সনু লিখেছেন, ‘ঈশ্বর সবার মঙ্গল করুন। আমি তো মুসলিম নই। তবে আমাকে কেন সকাল বেলা আজান শুনে ঘুম থেকে উঠতে হবে? ‘অনিচ্ছা সত্ত্বেও প্রতিদিন আজানের শব্দে আমার ঘুম ভেঙে যায়। আরকেটি টুইটে তিনি লেখেন,মোহাম্মদের সময় তো বিদ্যুৎ ছিল না। কিন্তু এখন মাইক্রোফোনের আওয়াজে আজানে সুর অনেক কর্কশ লাগে। সনু তার টুইটে লেখেন আজানের ধ্বনিকে ‘জোর করে চাপিয়ে দেয়া হয়েছে।সনু আজানকে সকালবেলা ‘ঘুম ভাঙার কারণ’ হিসেবে তুলে ধরেছেন। সনু আজান দেয়াকে জুলুম হিসেবে আক্ষায়িত করেন।
pooja bhatt
ভারতের খ্যাতনামা অভিনেত্রী ও চলচ্চিত্র প্রযোজক পূজা ভাট
ভারতীয় গায়ক সনু নিগম আজান নিয়ে মন্তব্য করায় তার জবাবে ভারতের খ্যাতনামা অভিনেত্রী ও চলচ্চিত্র প্রযোজক পূজা ভাট বলেন,আজানের শব্দ আমার ভাল লাগে। প্রতিদিন ভোরে আজানের শব্দে আমার ঘুম ভেঙে যায় এবং এটি আমার কাছে খুব ভালো লাগে। টুইটার বার্তায় পূজা আরো বলেন, বানদারার ফ্লাটের নীরব গলিতে প্রতি সকালে চার্চের ঘণ্টা ধ্বনি এবং আজানের শব্দে আমার ঘুম ভাঙে।ঘুম ভাঙার পর ভারতীয় চেতনাকে সালাম জানাই এবং তার স্মরণে আগরবাতি জ্বালাই।আজানের ধ্বনি আমার কাছে শুধু ভাল লাগে তা নয় সুমধুরও লাগে। আজানের সুমধুর শব্দে ঘুম ভাঙার পর ভোরের স্নিগ্ধ বাতাসে হাটাহাটি করি,হালকা ব্যায়াম করি। ভোরবেলা চারিদিকের পরিবেশ মনোমুগ্ধকর থাকে।সে সময় আমি একটা স্বর্গীয় পরিবেশ অনুভব করি। আজানের শব্দকে তথা আজানকে আমি সম্মান করি শ্রদ্ধা করি।
হিন্দু ধর্মাবলম্বী ভক্তরাও সনুকে ত্যাগ করার ঘোষণা দিয়েছেন টুইটারে। অনেকে বলেছেন, সনুর ক্ষমা চাওয়া উচিত। কেউ বলেছেন, তার অন্য ধর্মের প্রতি সহিষ্ণু হওয়া উচিত।